মাগুরায় সমুদ্র পথে মালয়েশিয়াগামী ৩ যুবকের স্বজনদের দিন কাটছে চরম উদ্বেগ উৎকন্ঠায়

📅13 May 2015, 14:50

pic 1 Pic 2

আমাদের মাগুরা ॥ দালালের খপ্পরে পড়ে সমুদ্র পথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়াগামী মাগুরা সদর উপজেলার ডেফুলিয়া গ্রামের ৩ যুবক প্রায় এক মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছে। নিখোঁজ ৩ যুবকের সন্ধানে পরিবারের সদস্যদের দিন কাটছে চরম উদ্বেগ উৎকন্ঠার মধ্যে দিয়ে। বিশেষ করে সমুদ্র পথে মালয়েশিয়া যাবার সময় আটক বাঙ্গালীদের ওপর থাইল্যান্ডে অর্বননীয় নির্যাতন ও হত্যার পর গণকবরে পুতে রাখার বিষয়টি গণ-মাধ্যমে প্রচারিত হওয়ার পর নিখোঁজের স্বজনদের মাঝে চলছে কান্নার রোল।

মাগুরার নিখোঁজ তিন যুবক হচ্ছে, সদর উপজেলার ডেফুলিয়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী মফিজার শেখের পুত্র ইমরান শেখ (২৩), তার মামাতো ভাই নূর ইসলামের পুত্র শাহিন বিশ্বাস (২২) ও ছোট ফলিয়া গ্রামের দুলাল মোল্যার ছেলে ইমরান মোল্যা (৩০)।

গতকাল ডেফুলিয়া গ্রামে ইমরানের বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, তার মা হাসিনা বেগম নিখোঁজ পুত্রের শোকে বুক চাপড়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন। তিনি জানান, ২৬ দিন আগে ঝিনাইদহের হাটগোপালপুরের রাজ্জাক নামের এক দালালের মাধ্যমে গোপনে তার ছেলে চিটাগাং যায়। পরদিন মোবাইলে জানায়, তারা ৩ জন সমুদ্র পথে মালয়েশিয়া যাচ্ছে। এ কথা বলার পর দালালরা তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনগুলো নিয়ে নেয়। এর পর থেকে তাদের আর কোন খোঁজ নেই। পরে জানতে পারি আমার ভায়ের ছেলে শাহিন ও তার সাথে আছে। গত ক’দিন ধরে মোবাইলে যোগাযোগ করে তাদের খোজঁ নেওয়ার চেষ্টা করা হলে রাজ্জাক নাম পরিচয়দানকারী দালাল প্রথমে জানায়, তাদেরকে চিটাগাংয়ের দালালের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে । পরে বিভিন্ন সময় ফোনে দালাল রাজ্জাকের সাথে যোগাযোগ করা হলে একেক সময় একেক কথা বলেছে। সর্বশেষ সে জানিয়েছে যে, তারা না খেয়ে আছে, তাদের খাওয়ার জন্য জনপ্রতি পাঁচ হাজার টাকা করে পাঠাতে হবে। বর্তমানে সে মোবাইল ফোন বন্ধ করে পলাতক রয়েছে।

ছোট ফালিয়া ইমরানের বাবা দুলাল মোল্যা জানায়, আমি আমার ছেলেকে অবৈধ ভাবে বিদেশ পাঠাবো না বলে তাকে পাসপোর্ট করতে দিয়েছি। কিন্তু সে পাসপোর্ট আনা পর্যন্ত অপেক্ষা করলো না। দালাল রাজ্জাকের প্রলভোনে পড়ে অবৈধ ভাবে মালয়েশিয়া পাড়ি জমালো। এর আগেও দু’বার চেষ্টা করেছিল। একবার দালাল রাজ্জাকের বাড়ি থেকে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছিলাম। সে কারনে এবার যাবার আগে আমাদেরকে কিছু বলেনি। এক মাস আগে সমুদ্র পথে যাবার সময় ট্রলারে ওঠার আগে ফোন করে বলেছিল আব্বা আমি মালয়েশিয়া যাচ্ছি। সে কারনে রাগে অভিমানে প্রথম দু’একদিন কোন খোঁজ নিইনি। পরবর্তীতে কয়েকদিন পার হয়ে গেলেও তার ফোন না পেয়ে খোঁজ করতে থাকি। এখন আল্লাহ-ই জানে আমার ছেলে বেঁচে আছে কিনা।

এ ব্যাপারে মাগুরা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের প্রবাসী কল্যান শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী কমিশনার মোঃ নাকিব হাসান তরফদার জানান, ডেফুলিয়া গ্রামের নিখোঁজ ৩ যুবকের ব্যাপারে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবার ৩ টিকে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

Share this article:

No Comments

No Comments Yet!

You can be first one to write a comment

Only registered users can comment.